মেডিকেল এ্যাসিষ্ট্যান্ট ট্রেনিং- ডিপ্লোমা ইন মেডিক্যাল ফ্যাকাল্টি

MATS (4 Years)

MATS (4 Years)

মেডিকেল এ্যাসিষ্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল বা ম্যাটস্ কি?
Medical Assistant Training School (MATS) হল এক ধরনের বিশেষায়িত মেডিক্যাল ডিপ্লোমা স্কুল। বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এ ধরনের স্কুল প্রতিষ্ঠার অনুমতি প্রদান করে। অনুমোদনের পরে সব ম্যাটস্ বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ (State Medical Faculty) এর মাধ্যমে পরিচালিত হয়। অনুষদের পাঠ্যক্রম অনুযায়ী পাঠদান করা হয় এবং অনুষদের সরাসরি তত্বাবধানে পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়।

ডিপ্লোমা ইন মেডিক্যাল ফ্যাকাল্টি Diploma of Medical Faculty (DMF) কি?
Diploma of Medical Faculty (DMF) ম্যাটস্ প্রতিষ্ঠানে পরিচালিত একটি কোর্সের নাম। এই কোর্সের মেয়াদ বর্তমানে ৪ বছর। সরকার অনুমোদিত যেকোনো ম্যাটস্ পাঠ্যক্রম সম্পন্ন করে যারা উত্তীর্ণ হন তাদেরকে Diploma of Medical Faculty (DMF) ডিগ্রি দেয়া হয়। ডিগ্রি গ্রহণ করে এসব চিকিৎসক-গন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন/লাইসেন্স প্রাপ্ত হয়ে চাকুরী বা প্রাইভেট মেডিকেল প্র্যাকটিস কাজ করতে পারেন।

পটভূমি:
আমাদের দেশে এমবিবিএস ডাক্তারের সংখ্যা এখনও যথেষ্ট নয়। তার পরেও যারা এমবিবিএস পাশ করেন, তারা মফস্বলে গিয়ে থাকতে চান না। সরকার পদায়নে বাধ্য করলেও তারা বদলি নিয়ে ঢাকায় চলে আসেন, বা ডিউটি করেন না (এমনকি অনেকে চাকরি ছেড়ে দিয়ে শহরের প্রাইভেট হসপিটালে যোগদান করেন)। তাই দেশর বৃহত্তম জনগোষ্ঠী স্বাস্থ্য নামের মৌলিক অধিকার বঞ্চিত ন হয়। সেই অভাব পূরণ করতে দেশের প্রান্তিক জনগণের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সেবা দ্রুত পৌঁছে দেবার উদ্দেশ্যে ১৯৭৬ সালে ম্যাটস্ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেয়া হয়। বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ (State Medical Faculty) এর আওতায় প্রথমে সরকারি উদ্যোগে ম্যাটস্ স্থাপিত হয়। এর পরে ক্রমশ বেসরকারি উদ্যোগে এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের ব্যাপক সম্প্রসারণ হয়। শুরুতে এই কোর্সটির মেয়াদ ছিল ৩ বছর। বর্তমানে এই কোর্সটি আরও আধুনিক করা হয়েছে এবং ৪ বছর মেয়াদে উন্নীত করা হয়েছে।

ম্যাটস্ প্রতিষ্ঠান থেকে DMF ডিগ্রি নিয়ে ১৯৭৯ সালে থেকে গ্রাম/ইউনিয়ন এবং উপজেলা-পর্যায়ে নিযুক্ত হয়ে মেডিকেল এ্যাসিষ্ট্যান্টগন চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছেন।

MATS (4 Years)

MATS/DMF পেশাজীবীদের সম্ভাবনা:
দেশে বর্তমান প্রায় ৫ হাজার সরকারী নিয়োগ প্রাপ্ত মেডিকেল এ্যাসিষ্ট্যান্ট DMF ডাক্তার আছে। সরকারী প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতিবছর ৩০০-৪০০জন পাশ করে বের হয়। অথচ DMF ডাক্তারের প্রয়োজন রয়েছে প্রায় ১০ হাজার। ২০০৮ সালের সরকার বিজ্ঞাপন দিয়েও চাহিদা অনুযায়ী DMF ডাক্তার পাওয়া যায়নি। শুধুমাত্র সরকারী ভাবে চাকুরীর পোষ্ট খালি রয়েছে ৯ হাজার এর উপরে। DMF ডিগ্রিধারীরা সরকারের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় অধীনে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে, বিভিন্ন স্বাস্থ্য উপ-কেন্দ্রে, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে, স্কুল হেলথ ক্লিনিক, বিভিন্ন আধাসরকারী/কর্পোরেশন- যেমন- তিতাস গ্যাস, বি,আই,ডব্লিউ, টি,সি, বিজি প্রেস, বাংলাদেশে বিমান ইত্যাদি ছাড়াও বিভিন্ন এনজিও প্রতিষ্ঠানে যেমন-ব্র্যাক, গণস্বাস্থ্য, কেয়ার, গণসাহায্যে সংস্থা, আই সি ডিডিআরবি, Save the Children (USA)/(UK), ইহা ছাড়াও দেশী বিদেশী নানা প্রতিষ্ঠানে DMF ডিগ্রি প্রাপ্তগন নিয়োগ পেয়ে থাকে। ভবিষ্যতে আরও নতুন কর্মক্ষেত্র তৈরি হবে। কিন্তু প্রশ্ন হল বর্তমানে শুধু সরকারী পর্যায়ে নিয়োগ দেওয়ার জন্য যথেষ্ট সংখ্যক DMF ডিগ্রিধারী না থাকায় বার বার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েও আসন খালি থেকে যাচ্ছে। এই সমস্যা সমাধানের জন্যই সরকার বেশী সংখ্যক DMF ধারী ডাক্তার তৈরির জন্য বেসরকারি পর্যায়ে শিক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা শুরু করেছে। বলতে গেলে বর্তমানে এবং সামনে আরও ৭/৮ বৎসর একহাতে DMF সার্টিফিকেট এবং অন্য হাতে চাকুরীর সুযোগ রয়েছে। আবার চাকুরী না করলেও একজন DMF ডাক্তার প্রাইভেট প্রাকটিশনার হিসাবে শহরে বন্দরে কিংবা গ্রামে ডাক্তারি করে মাসে ভালো পরিমাণ অর্থ রোজগার করতে পারবে যাহা একটা ভালো চাকুরীর চেয়ে কোন অংশে কম নয়।সরকারী চাকুরীতে DMF -দের Sub-Assistant Community Medical officer বা উপ-সহকারী চিকিৎসা কর্মকর্তা অথবা Medical Assistant হিসাবে এবং বেসরকারি ক্ষেত্রে নানাবিধ পদে চাকুরীতে নিয়োগ দেওয়া হয়। এক কথায় কোর্স সম্পন্ন করলে ১০০% নিশ্চিত চাকুরী অথবা আত্ম কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে।

গুরুকুল এর প্রতিষ্ঠান সমুহে কেন MATs-DMF কেন পড়বেন?

MATS (4 Years)

* অভিজ্ঞ শিক্ষক।
* প্রতিষ্ঠানটিতে ১০০% ব্যবহারিক ক্লাস করার নিশ্চয়তা রয়েছে।
* কোন প্রকার গৃহ শিক্ষকের প্রয়োজন নেই।
* আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন অন্যতম প্রাইভেট ম্যাটস্।
* সরকারী বড় হাসপাতালে ৪র্থ বর্ষ থেকে ইন্টার্র্নি করার সুবিধা।
* স্বাস্থ্য সহ বিভিন্ন বিষয়ের বই সমৃদ্ধ লাইব্রেরী।
* শিক্ষার্থীদের তত্ত্বাবধানের জন্য গাইড শিক্ষক ব্যবস্থা।
* বিভিন্ন ধরনের কারিক্যুলার, কো-কারিকুল্যার ও এক্সট্রা করিকুল্যার কর্মসূচির আয়োজন।
* পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের (যদি থাকে) জন্য বিশেষ প্রোগ্রাম।

শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা:
১। মেয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য সর্বচ্চ ৫০% ছাড়ের সুযোগ।
২। বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ১০০% বৃত্তির সুযোগ।
৩। নিজস্ব ডায়াগনস্টিক সেন্টারে স্বল্প খরচে শিক্ষার্থী ও তার পরিবারের মেডিকেল টেস্টের সুযোগ।

কাজের সুযোগ:

 

সফলভাবে ম্যাটস কোর্স সম্পন্নকারীদের জন্য কর্ম ক্ষেত্রের সুবর্ণ সুযোগ রয়েছে। ম্যাটস কোর্স সম্পন্ন করার পর একজন ব্যক্তি সরকারী হাসপাতাল/বেসরকারি হাসপাতাল/কমিউনিটি হাসপাতালে দ্বিতীয় শ্রেণীর বিভিন্ন পদে যোগদান করতে পারেন।

সরকারী পর্যায়ে যেমন-

  • জেলা সদর হাসপাতাল
  • উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স
  • কমিউনিটি ক্লিনিক
  • বিভিন্ন সরকারি চিকিৎসা সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানে কর্মক্ষেত্রের সুযোগ রয়েছে। যেমন- মেডিকেল কলেজ, ম্যাটস ইন্সটিটিউট, নার্সিং ইন্সটিটিউট ও কলেজ, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ, বিভিন্ন সরকারি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ইত্যাদি।

বেসরকারি পর্যায়ে যেমন-

  • বেসরকারি হাসপাতাল
  • বেসরকারি ক্লিনিক
  • বিভিন্ন এনজিও
  • ডায়াগনস্টিক সেন্টার
  • বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রি
  • বিভিন্ন বেসরকারি চিকিৎসা সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানে কর্মক্ষেত্রের সুযোগ রয়েছে। যেমন- মেডিকেল কলেজ, ম্যাটস ইন্সটিটিউট, নার্সিং ইন্সটিটিউট ও কলেজ,বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ,বিভিন্ন বেসরকারি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ইত্যাদি।

এছাড়াও নিজস্ব চেম্বার এর মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা যায়।

ভর্তির যোগ্যতা:MATS (4 Years)
প্রার্থীকে সর্বোচ্চ ৪ বছর আগে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এস.এস.সি/দাখিল/ উন্মুক্ত (জীব বিজ্ঞানসহ) সম-মানের পরীক্ষায় নূন্যতম জি.পি.এ ২.৫০ পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে।

কোর্স স্ট্রাকচার:
– তিন বছর একাডেমিক কোর্স (১ম, ২য় ও ৩য় বর্ষ) ।
– এক বছর ইন্টার্নশিপ কোর্স ( ৯ মাস জেলা সদর হাসপাতাল ও ৩ মাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স )।

কোর্স কারিকুলাম :
ম্যাটস কোর্সের শিক্ষার্থীরা মানবদেহের অঙ্গ প্রত্যঙ্গের অবস্থান সম্পর্কে স্পষ্ট ধারনা পায়। তারা সমাজের মানুষের স্বাস্থ্য সম্পর্কে সব ধরনের জ্ঞান লাভ করে। এছাড়া কিভাবে তা রোগ প্রতিরোধ ও পুনর্বাসন করতে হয় সে সম্পর্কে প্রশিক্ষিত হয়ে গড়ে ওঠে । বিভিন্ন ধরনের ড্রাগ এবং মেডিসিন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয় । বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা যেমন রক্ত পরীক্ষা, প্রসাব পরীক্ষা, এক্স-রে ও অন্যান্য পরীক্ষা সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা দেয়া হয় । শিশু থেকে শুরু করে বয়স্ক মানুষের কী কী রোগ হতে পারে এবং লক্ষণ প্রকাশ ও তা অনুযায়ী রোগের চিকিৎসা সম্পর্কে বিস্তারিত প্রশিক্ষণ ও দেয়া হয় ।এমন কি বিভিন্ন অপারেশনে পারদর্শী করে তোলা হয় । মহিলাদের বাচ্চা প্রসব করা, নবজাতকের পরিচর্যা, মা ও শিশুর স্বাস্থ্য সম্পর্কে ধারনা দেওয়া হয়। এছাড়া চিকিৎসা বিষয়ক আইনগুলো সম্পর্কে ধারনা দেয়া হয়।

চিকিৎসাবিদ্যার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের ইংরেজিতে কথা বলা, লেখা ও উচ্চারণের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিতে দক্ষ করে গড়ে তোলা হয়। (এটাচ্ ফাইলে দেয়া হল-)

 

MATS (4 Years)

কোর্সের ক্ষেত্রে গুরুকুলের বিশেষত্ব:
১।মেধাবীদের জন্য বৃত্তির বিশেষ ব্যবস্থা ।
২।দক্ষ, অভিজ্ঞ ও বিষয় ভিত্তিক শিক্ষকমন্ডলী দ্বারা পাঠ দান ।
৩।সর্বাধুনিক প্রযুক্তি সমৃদ্ধ ল্যাব ।
৪।কর্মমুখী শিক্ষা বাস্তবায়নে বিভাগ ভিত্তিক ল্যাব।
৫।অভিভাবকের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ ।
৬।বিনা খরচে ইংরেজি ও তথ্য প্রযুক্তি প্রশিক্ষণ ।
৭।ছাত্র-ছাত্রীদের এক একটি দল বা গ্রুপ তৈরি করে পাঠদান পদ্ধতি ।
৮।গাইড শিক্ষকদের তত্ত্বাবধানে প্রতিটি শিক্ষার্থীর একাডেমিক কার্যক্রম নিয়মিত মনিটরিং ব্যবস্থা।
৯।সেরা ফলাফলের নিশ্চয়তা।
১০।নিয়মিত ক্লাস গ্রহণ।
১১।ডিজিটাল ক্লাস রুম, স্মার্ট বোর্ড ও ক্লাসে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর ব্যবহার।
১২।মানবিক গুণাবলী সমৃদ্ধ সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে বিভিন্ন ক্লাবের মাধ্যমে খেলাধুলা ও সংস্কৃতি চর্চার ব্যবস্থা করা হয় যেমন-

  • গুরুকুল কালচারাল ক্লাব
  • গুরুকুল ডিবেটিং ক্লাব
  • গুরুকুল হেলথ ক্লাব
  • গুরুকুল ল্যাংগুয়েজ ক্লাব
  • গুরুকুল স্পোর্টস ক্লাব

 

শিক্ষার্থীর বক্তব্য:
আমি শোভা সুলতানা স্পেশালাইজড ম্যাটস ২০১৫-২০১৬ সেশনের শিক্ষার্থী।আমি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ঘুরে স্পেশালাইজড ম্যাটস এ ভর্তি হয়েছি এ জন্য যে,এ প্রতিষ্ঠানে সমৃদ্ধ ল্যাব, মনোরম পরিবেশ,দক্ষ ও অভিজ্ঞ শিক্ষক ম-লী দ্বারা ক্লাস গ্রহণ পদ্ধতি দেখে আমার খুবই ভাল লেগেছে।পড়াশুনার পাশাপাশি আমাদের প্রতিষ্ঠানে শিক্ষা-মূলক,বিনোদন মূলক ও সামাজিক বিভিন্ন কর্মকা-ে অংশগ্রহণ করতে হয় যা, আমাকে একজন মানবিক গুণাবলি সমৃদ্ধ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সহযোগিতা করছে।গাইড শিক্ষকগণ আমাদের সার্বক্ষণিক খোজ-খবর নেন এবং অভিভাবকদের সাথেও নিয়মিত যোগাযোগ রাখেন।অতএব আমি দৃঢ়ভাবে বলতে পারি যে আমি এখান থেকে পাশ করে দেশের চিকিৎসা সেবায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারবো।

বিভাগীয় প্রধানের বক্তব্য:
বর্তমান বিশ্বে নতুন নতুন রোগের সৃষ্টি হচ্ছে।সৃষ্টি হচ্ছে নতুন নতুন চিকিৎসা প্রযুক্তি, সেই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে আমরা নিরালস্য ভাবে কাজ করে যাচ্ছি। একই পাঠ শিক্ষার্থীদের বোঝার স্বার্থে আমরা বিভিন্ন ভাবে ক্লাসে উপস্থাপনা করে থাকি যেমন-লেকচারের মাধ্যমে,প্রদর্শনের মাধ্যমে,গ্রুপ আলোচনার মাধ্যমে,মাল্টিমিডিয়ার ক্লাসের মাধ্যমে এবং বাস্তব প্রয়োগের মাধ্যমে।আমাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে পাঠ্যক্রমকে সহজ ভাবে শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে দেয়া যা তাদের বাস্তব জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করি।

মন্টু বাইন,

বিভাগীয় প্রধান,

স্পেশালাইজড ম্যাটস।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।