ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং

মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বা যন্ত্র কৌশল বলতে মেশিন বা কলকব্জা ও এর যন্ত্রাংশের নকশা প্রস্তুত, উৎপাদন, মেরামত, রক্ষাণাবেক্ষণ ও উন্নয়ন সর্ম্পকৃত বিষয়কে বুঝায়। এটি যান্ত্রিক ডিভাইস এবং সিস্টেম তৈরি এবং উন্নত করতে পদার্থবিদ্যা, গণিত, বস্তুগত বিজ্ঞান এবং প্রকৌশলের নীতিগুলিকে একত্রিত করে। যান্ত্রিক প্রকৌশল আধুনিক সমাজের অবিচ্ছেদ্য অংশ যা প্রযুক্তি এবং শিল্পে উদ্ভাবন ও উন্নয়ন ঘটিয়ে চলেছে।

যান্ত্রিক প্রকৌশলের মূল দিক সমূহ:

  • মেকানিক্স: শক্তির অধ্যয়ন এবং পদার্থের উপর তাদের প্রভাব। এর মধ্যে রয়েছে স্ট্যাটিক্স, গতিবিদ্যা, এবং পদার্থের মেকানিক্স (বিভিন্ন লোডের মধ্যে কীভাবে উপকরণগুলি বিকৃত হয়)।
  • তাপগতিবিদ্যা: শক্তি, তাপ এবং তাদের রূপান্তরের বিজ্ঞান। যান্ত্রিক প্রকৌশলীরা শক্তি রূপান্তর, গরম, শীতলকরণ এবং হিমায়নের জন্য সিস্টেম ডিজাইন করতে তাপগতিবিদ্যা ব্যবহার করে।
  • ফ্লুইড মেকানিক্স: তরল (তরল এবং গ্যাস) কীভাবে প্রবাহিত হয় এবং কীভাবে তারা তাদের চারপাশের সাথে যোগাযোগ করে এবং তাদের উপর শক্তির প্রভাব অন্তর্ভুক্ত।
  • তাপ স্থানান্তর: কীভাবে তাপ পদার্থের মধ্য দিয়ে এবং বিভিন্ন পরিবেশের মধ্যে চলে তার অধ্যয়ন। থার্মাল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ডিজাইন করার ক্ষেত্রে এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
  • উপাদান বিজ্ঞান: পদার্থের বৈশিষ্ট্য এবং আচরণ বোঝা। এর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনের জন্য উপযুক্ত উপকরণ নির্বাচন করা এবং নতুন উপকরণ ডিজাইন করা।
  • কন্ট্রোল সিস্টেম: কিভাবে গতিশীল সিস্টেমের আচরণকে ম্যানিপুলেট করা যায় তার অধ্যয়ন। এর মধ্যে এমন সিস্টেম ডিজাইন করা জড়িত যা ঝামেলা সত্ত্বেও কাঙ্খিত আউটপুট বজায় রাখে।

mt 3 ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং

ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংঃ

মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ ডিপ্লোমা হল একটি বিশেষ শিক্ষামূলক প্রোগ্রাম যা শিক্ষার্থীদের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে মৌলিক জ্ঞান এবং ব্যবহারিক দক্ষতা প্রদানের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। সাধারণত চার বছর বিস্তৃত এই প্রোগ্রামটি মেকানিক্স, থার্মোডাইনামিক্স, ফ্লুইড মেকানিক্স, ম্যাটেরিয়াল সায়েন্স এবং কম্পিউটার-এডেড ডিজাইন (CAD) এর মতো প্রয়োজনীয় বিষয়গুলিকে কভার করে। শিক্ষার্থীরা হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ এবং পরীক্ষাগারের কাজে নিযুক্ত থাকে, যা তাদের বাস্তব-বিশ্বের যান্ত্রিক সমস্যাগুলির তাত্ত্বিক ধারণাগুলি বুঝতে এবং প্রয়োগ করতে সহায়তা করে। ম্যানুফ্যাকচারিং, স্বয়ংচালিত, মহাকাশ এবং শক্তির মতো শিল্পে বিভিন্ন এন্ট্রি-লেভেল পদের জন্য প্রয়োজনীয় প্রযুক্তিগত দক্ষতার সাথে শিক্ষার্থীদের প্রস্তুত করার জন্য পাঠ্যক্রমটি তৈরি করা হয়েছে।

 

ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং কেন পড়বেন?

বর্তমান সময়ে সকল ক্ষেত্রে আধুকি যন্ত্রপাতির ব্যপক ব্যবহার বেড়েছে। আর এই সকল যন্ত্রপাতি প্রস্তুত, ব্যবহার, রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন যন্ত্রকৌশলে দক্ষ জনবল। আর যন্ত্রকৌশলে দক্ষ জনবল তৈরী করতে ডিপ্লোমা মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে। বলা হয়ে থাকে যেখানে মেশিন, সেখানে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার।

 

ডিপ্লোমা মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের পদবীঃ

ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করার পর নিম্নলিখিত পদে চাকরী হয়ে থাকে-

  • উপ সহকারী প্রকৌশলী
  • প্রডাকশন ইনচার্জ
  • প্রডাকশন সুপারভাইজার
  • মেইটেনেন্স ইঞ্জিনিয়ার
  • প্লান্ট ইঞ্জিনিয়ার

 

মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের দায়িত্ব বা কাজঃ

১। নকশা ও উন্নয়নঃ

  • খসড়া এবং নকশা: CAD সফ্টওয়্যার ব্যবহার করে যান্ত্রিক উপাদান এবং সিস্টেমের জন্য বিস্তারিত প্রযুক্তিগত অঙ্কন এবং নকশা তৈরি করুন।
  • প্রোটোটাইপ ডেভেলপমেন্ট: প্রোটোটাইপগুলির কার্যকারিতা এবং কার্যকারিতা মূল্যায়ন করতে তাদের বিকাশ এবং পরীক্ষায় সহায়তা করুন।

২। রক্ষণাবেক্ষণ এবং সংস্কারঃ

  • সরঞ্জাম রক্ষণাবেক্ষণ: সর্বোত্তম কর্মক্ষমতা নিশ্চিত করতে যান্ত্রিক সিস্টেম এবং যন্ত্রপাতিগুলিতে নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ করুন।
  • সমস্যা সমাধান: যন্ত্রপাতি এবং সরঞ্জামের যান্ত্রিক সমস্যাগুলি নির্ণয় এবং মেরামত করা, ডাউনটাইম কম করা এবং দক্ষতা নিশ্চিত করা।

৩। মান নিয়ন্ত্রণঃ

  • পরিদর্শন: যান্ত্রিক উপাদান এবং সিস্টেমগুলি নির্দিষ্ট মান এবং সহনশীলতা পূরণ করে তা নিশ্চিত করার জন্য পরিদর্শন পরিচালনা করুন।
  • পরীক্ষা: যান্ত্রিক সিস্টেমে তাদের কর্মক্ষমতা এবং নিরাপত্তা ও গুণমানের মানদণ্ডের আনুগত্য যাচাই করতে পরীক্ষা করুন।

৪। উৎপাদন সমর্থনঃ

  • উৎপাদন সহায়তা: উত্পাদনের সরঞ্জামগুলির সেটআপ এবং পরিচালনায় সহায়তা করুন, নিশ্চিত করুন যে উত্পাদন প্রক্রিয়াগুলি সুচারুভাবে চলছে৷
  • প্রক্রিয়া উন্নতি: উৎপাদন প্রক্রিয়ার উন্নতি এবং দক্ষতা ও উৎপাদনশীলতা বাড়াতে পরিবর্তনগুলি বাস্তবায়নের সুযোগ চিহ্নিত করুন।

৫। প্রকল্প ব্যবস্থাপনাঃ

  • প্রকল্প সহায়তা: প্রজেক্ট ডকুমেন্টেশন, সময়সূচী এবং অগ্রগতি রিপোর্ট প্রস্তুত করে প্রকৌশল প্রকল্পগুলিকে সমর্থন করুন।
  • সমন্বয়: প্রকল্পের সফল সমাপ্তি নিশ্চিত করতে অন্যান্য প্রকৌশলী, প্রযুক্তিবিদ এবং বিভাগের সাথে সমন্বয় করুন।

 

৬। প্রযুক্তিগত ডকুমেন্টেশনঃ

  • ডকুমেন্টেশন: প্রযুক্তিগত স্পেসিফিকেশন, রক্ষণাবেক্ষণ লগ এবং মেরামতের রিপোর্ট সহ বিস্তারিত রেকর্ড প্রস্তুত এবং বজায় রাখুন।
  • ম্যানুয়াল এবং গাইড: যান্ত্রিক সিস্টেম এবং সরঞ্জামের জন্য ব্যবহারকারীর ম্যানুয়াল এবং রক্ষণাবেক্ষণ গাইড তৈরি করুন।

৭। নিরাপত্তা এবং সম্মতিঃ

  • নিরাপত্তা মান: নিশ্চিত করুন যে সমস্ত কাজ নিরাপত্তা প্রবিধান এবং শিল্প মান মেনে সঞ্চালিত হয়েছে।
  • নিয়ন্ত্রক সম্মতি: প্রাসঙ্গিক প্রবিধান এবং মানগুলির সাথে আপডেট থাকুন, নিশ্চিত করুন যে সমস্ত যান্ত্রিক সিস্টেম এবং প্রক্রিয়াগুলি সেগুলি মেনে চলে৷

৮। গ্রাহক এবং প্রযুক্তিগত সহায়তাঃ

  • গ্রাহক সমর্থন: গ্রাহকদের প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদান করুন, তাদের প্রশ্নের সমাধান করুন এবং যান্ত্রিক পণ্য এবং সিস্টেম সম্পর্কিত সমস্যাগুলি সমাধান করুন৷
  • প্রশিক্ষণ: যান্ত্রিক সরঞ্জামের সঠিক ব্যবহার এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ট্রেন অপারেটর এবং অন্যান্য কর্মীদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ প্রদান।

৯। পেশাগত উন্নয়ন: যান্ত্রিক প্রকৌশল এবং সম্পর্কিত প্রযুক্তির সাম্প্রতিক অগ্রগতিগুলির সমপর্যায়ে থাকার জন্য অবিচ্ছিন্ন শিক্ষা এবং পেশাদার বিকাশে জড়িত থাকা।

mt 2 1 ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং

 

ডিপ্লোমা মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের কর্মক্ষেত্রঃ

সরকারি সংস্থাঃ

  • দ্বিতীয় শ্রেণীর গেজেটেড কর্মকর্তা হিসাবে সরকারি চাকরি।
  • স্থানীয় সরকার বিভাগ (এলজিডি)
  • স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন বিভাগ (এলজিআরডি)
  • রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)
  • আমর্ড ফোর্স
  • স্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগ (এইচইডি)
  • বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ (বিবিএ)
  • সড়ক ও জনপথ বিভাগ (আরএইচডি)
  • বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)
  • বাংলাদেশ রেলওয়ে
  • গণপূর্ত বিভাগ (PWD)
  • বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (PWDB)
  • বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (BPDB)
  • বাংলাদেশ পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (BPDC)
  • পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (PGCB)
  • বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি
  • ঢাকা ওয়াসা
  • সিটি করপোরেশন
  • সেনাবাহিনী
  • বিভিন্ন বন্দর
  • দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর
  • সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট এর শিক্ষক
  • সরকারি কেনিক্যাল স্কুল ও কলেজের শিক্ষক
  • টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের শিক্ষক

 

বেসরকারি সংস্থাঃ

দেশ বিদেশের বিভিন্ন ইঞ্জিনিয়ারিং ফার্ম, কন্সট্রাকশন ফার্ম এবং কনসালটেন্সি ফার্ম এবং যন্ত্র ও কলকব্জা প্রস্তুত প্রতিষ্ঠানসমূহ বিভিন্ন পদে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার নিয়োগ দিয়ে থাকে। যেমন- ওয়ালটন, বাজাজ, নিটল মটরস, রানার, রহিমআফরোজ, হ্যামকো গ্রুপ ইত্যাদি। বিশ্বায়নের সাথে, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য বিদেশে প্রচুর কাজ করার সুযোগ রয়েছে।

 

ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং কোথায় পড়বেন?

দেশের প্রায় সকল সরকারি ও বেসরকারি পলেটেকনিকে ৪ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ভর্তির সুযোগ রয়েছে। কুষ্টিয়াতে দেশসেরা বেসরকারি ইন্সটিটিউট গুরুকুল-এ ৪ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ রয়েছে।

 

গুরুকুলে কেন পড়বেন?

  • বিষয়ভিত্তিক অভিজ্ঞ শিক্ষক মন্ডলী
  • মাল্টিমিডিয়া শ্রেণী কক্ষ
  • যুগোপযোগী আধুনিক ব্যবহারিক ল্যাবরেটরি
  • বিষয়ভিত্তিক বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের সাথে ইর্ন্টার্ণি ও কর্মসংস্থানের চুক্তি
  • দেশি বিদেশী বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে কোলাবোরেশন
  • একাডেমিক শিক্ষা পাশাপাশি রোভাট স্কাউটিং, ডিবেটিং, ক্রিড়া ও সাংস্কৃতিক চর্চার ব্যবস্থা
  • নিয়মিত অভিভাবকের সাথে যোগাযোগ

mt1 1 ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং

ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ভর্তির যোগ্যতাঃ

এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় পাসকৃতরা ডিপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ভর্তি হতে পারেন। নূন্যতম জিপিএ ২.০০। এ ক্ষেত্রে বয়স এবং এসএসসি পাসের বছরের কোন সীমাবদ্ধতা নেই।

 

গুরুকুলে ভর্তির জন্য যোগাযোগঃ

৫/১, জেহের আলী সড়ক, কালিশংকরপুর, কুষ্টিয়া। মোবাইলঃ ০১৭০১-২২৯৬২১, ০১৭০১-২২৯৬২২

 

উচ্চ শিক্ষা সুযোগঃ

বুয়েট, কুয়েট, চুয়েট সহ বাংলাদেশের অধিকাংশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি বিএসসি ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ রয়েছে। এ ছাড়া দেশের প্রায় সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েও সরাসরি বিএসসি ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ রয়েছে। সে ক্ষেত্রে অবশ্যই মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ভালো গ্রেড পয়েন্ট সহ পাশ করতে হবে। ডেপ্লোমা ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পাশকৃতদের জন্য সরকারি ডুয়েট সহ দেশের প্র্রায় সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএসসি ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ রয়েছে। এছাড়া ইউরোপ, অ্যামেরিকা, জাপান, চীন সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে স্কলারশিপ সহ বিএসসি ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ রয়েছে।